আপনি জানেন শ্রীমদ্ভগবদগীতার মাহাত্ম কি

শ্রীমদ্ভগবদগীতা মাহাত্ম :

হরে কৃষ্ণ, আমরা দৈনন্দিন জীবনে শ্রীমদ্ভগবদগীতার প্রায়ই পাঠ করে থাকি, গীতাতে মোট ৭০০ শ্লোক আছে এবং এই শ্লোক গুলো ১৮ অধ্যায়ে বিভক্ত. কিন্তু অনেকেই জানি না শ্রীমদ্ভগবদগীতা মাহাত্ম কি, শাস্ত্র গীতা পাঠের মাহাত্ম তা জানবো –

গীত মাহাত্ম ১ :

গীতশাস্ত্রমিদং পুণ্যং যঃ পঠেৎ প্রযুতঃ পুমান্ ।

ভগবদ্গীতার নির্দেশকে যথাযথভাবে অনুসরণ করতে পারলে, অতি সহজেই সমস্ত ভয় ও উদ্বেগ থেকে মুক্ত হওয়া যায়। এই জীবনে ভয় ও শােকাদি বর্জিত হয়ে পরবর্তী জীবনে চিন্ময় স্বরূপ অর্জন করা যায়।

গীত মাহাত্ম্য ২ :

গীতাধ্যায়নশীলস্য প্রাণায়মপরস্য চ ।

নৈব সস্তি হি পাপনি পূর্বজন্মকৃতনি চ ॥

“কেউ যদি আন্তরিকভাবে এবং অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে ভগবদ্গীতা পাঠ করে, তা হলে ভগবানের করুণায় তার অতীতের সমস্ত পাপকর্মের ফল তাকে প্রভাবিত করে না।”

গীতা মাহাত্ম্য ৩ :

মলিনে মোচনং পুংসাং জলস্নানং দিনে দিনে।

সকৃদ গীতামৃতস্নানং সংসারমলনাশনম্ ॥ 

“প্রতিদিন জলে স্নান করে মানুষ নিজেকে পরিচ্ছন্ন করতে পারে, কিন্তু কেউ যদি ভগবদ্গীতার গঙ্গাজলে একটি বারও স্নান করে, তা হলে তার জড় জীবনের মলিনতা একেবারেই বিনষ্ট হয়ে যায়।”

গীত মাহাত্ম্য ৪ :

গীতা সুগীতা কর্তব্যা কিমন্যৈ শাস্ত্রবিস্তরৈঃ।

যা স্বয়ং পদ্মনাভস্য মুখপদ্মাদ্  বিনিঃসৃতা ॥

যেহেতু ভগবদ্গীতার বাণী স্বয়ং পরম পুরুষােত্তম ভগবানের মুখনিঃসৃত বাণী, তাই এই গ্রন্থ পাঠ করলে আর অন্য কোন বৈদিক সাহিত্য পড়বার দরকার হয় না। গভীর নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সঙ্গে নিয়মিতভাবে ভগবদ্গীতা শ্রবণ ও কীর্তন করলে আমাদের অন্তনিহিত ভগবদ্ভক্তির স্বাভাবিক বিকাশ হয়। বর্তমান জগতে মানুষেরা নানা রকম কাজে এতই ব্যস্ত থাকে যে, তাদের পক্ষে সমস্ত বৈদিক সাহিত্য পাঠ করা সম্ভব নয়। সমস্ত বৈদিক সাহিত্য পড়বার প্রয়োজনও নেই। এই একটি গ্রন্থ ভগবদ্গীতা পাঠ করলেই মানুষ সমস্ত বৈদিক জ্ঞানের সারমর্ম উপলব্ধি করতে পারবে, কারণ ভগবদ্গীতা হচ্ছে বেদের সার এবং এই গীতা স্বয়ং ভগবানের মুখনিঃসৃত উপদেশ বাণী।

গীতা মাহাত্ম্য ৫ :

ভারতামৃতসর্বস্বং বিষ্ণুবত্ত্রাদ বিনিঃসৃতম্।

গীতাগঙ্গোদকং পীত্বা পুনর্জন্ম ন বিদ্যাতে ॥

 “গঙ্গাজল পান করলে অবধারিতভাবে মুক্তি পাওয়া যায়, আর যিনি ভগবদ্গীতার পুণ্য পীযুষ পান করেছেন, তার কথা আর কি বলবার আছে? ভগবদ্গীতা হচ্ছে মহাভারতের অমৃতরস, যা আদি বিষ্ণু ভগবান শ্রীকৃষ্ণ নিজেই বলে গেছেন।” ভগবদ্গীতা পরম পুরুষােত্তম ভগবান শ্রীকৃষ্ণের মুখনিঃসৃত, আর গঙ্গা ভগবানের চরণপদ্ম থেকে উদ্ভূত বলে উল্লেখ করা হয়েছে। ভগবানেরমুখ ও পায়ের মধ্যে অবশ্য কোন পার্থক্য নেই। তবে আমাদের এটি বুঝতে অসুবিধা হয় না যে, ভাগীতার গুরুত্ব গঙ্গার চেয়েও বেশি।

গীত মাহাত্ম্য ৬ :

সর্বোপনিষদো গাবো দোগ্ধা গোপালনন্দনঃ।

পার্থো বৎসঃ সুধীর্ভোক্তা দুগ্ধং গীতামৃতং মহৎ ॥

“এই গীতােপনিষদ্ ভগবদ্গীয় সমস্ত উপনিষদের সারাতিসার এবং তা ঠিক একটি গাভীর মতাে এবং রাখাল বালকরূপে প্রসিদ্ধ ভগবান শ্রীকৃষ্ণই এই গাভীকে দোহন করেছেন। অর্জুন যেন গােবংসের মতাে এবং জ্ঞানীগুণী ও শুদ্ধ ভক্তেরাই ভগবদ্গীতার সেই অমৃতময় দুগ্ধ পান করে থাকেন।”

গীতা মাহাত্ম্য ৭ :

একং শাস্ত্র দেবকীপুত্রগীতম

একো দেবো দেবকীপুত্র এব। 

একো  মন্ত্রস্তস্য নামানি যানি

কর্মাপ্যাকং তস্য দেবস্য সেবা ॥

বর্তমান জগতে মানুষ আকুলভাবে আকাক্ষা করছে একটি শাস্ত্রের, একক ভগবানের, একটি ধর্মের এবং একটি বৃত্তির। তাই, একং শাস্ত্রং দেবকীপুত্রগীতম— সারা পৃথিবীর মানুষের জন্য সেই একক শাস্ত্র হােক ভগবদ্গীত। একো দেবো দেবকীপুত্র এব— সমগ্র বিশ্বচরাচরের একক ভগবান হােন ভগবান শ্রীকৃষ্ণ। একো মন্ত্রস্তস্য নামানি— একক মন্ত্র, একক প্রার্থনা, একক স্তোত্র হােক তার নাম কীর্তন—

হরে কৃষ্ণ হরে কৃষ্ণ কৃষ্ণ কৃষ্ণ হরে হরে।

হরে রাম হরে রাম রাম রাম হরে হরে ।


এবং কর্মাপ্যাকং তস্য দেবস্য সেবা সমস্ত মানুষের একটিই বৃত্তি হােক—পরম পুরুষােত্তম ভগবান শ্রীকৃষ্ণের সেবা করা।

শ্রীমদ্ভগবদগীতার শ্লোক, অনুবাদ এবং তাৎপর্য এখানে এবং বিস্তারিত ভাবে গীতার মাহাত্ম পড়তে এখানে ক্লিক করুন।

Comments Below

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *